বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানো হবে সাহেদকে

রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান ও হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদকে আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে পাঠানো হবে। আজ বুধবার রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) জনসংযোগ শাখার উপকমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ হোসেন এই তথ্য জানান।

আজ বুধবার ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত থেকে মো. সাহেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। সকালেই তাকে ঢাকায় নিয়ে আসে র‍্যাব। সাহেদকে নিয়ে উত্তরার গোপনে অফিসে অভিযান পরিচালনা শেষে তাকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) হস্তান্তর করে র‍্যাব। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়। সেখান থেকে পুনরায় সাহেদকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়। ডিসি ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘আদালতে পাঠিয়ে সাধারণত সাহেদের ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়ার কথা। কিন্তু এখনো ঠিক হয়নি কতদিন রিমান্ড চাওয়া হবে। কাল তাকে আদালতে পাঠানো হবে। জানতে চাইলে গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, ‘এই ব্যাপারে এখনো আমি জানি না। ভালো বলতে পারবেন ডিসি শফিকুল আলম।’

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শফিকুল আলম বলেন, ‘কাল সাহেদকে আদালতে পাঠানো হবে। কিন্তু কত দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে তা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। সাহেদকে ডিবিতে হস্তান্তরের আগে এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘সাহেদের নামে প্রায় ৫৯টি মামলা রয়েছে। এ থেকেই তিনি কতটা প্রতারক সেটি বুঝতে পারছেন। কোনো জায়গায় স্থিরভাবে তিনি থাকেননি। রাজধানী থেকে বের হয়েছেন, আবার রাজধানীতে ঢুকেছেন আবার বের হয়েছেন। আমরাও তাকে প্রথম থেকেই সেভাবেই অনুসরণ করছিলাম। একপর্যায়ে তাকে ধরতে সক্ষম হই। গত ৬ জুলাইয়ের পর থেকে সাহেদ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্নভাবে চলাফেরা করতেন। কখনো গণপরিবহনে, কখনো ব্যক্তিগত গাড়িতে, কখনো ট্রাকে চড়ে আবার কখনো হেঁটে চলাফেরা করেছেন।’