ভালুকায় আরিফ স্পিনিং মিলে রহস্যজনক চুরি,এক শ্রমিকে ফাঁসিয়ে দেয়ার অভিযোগ

তমাল কান্ত্মি সরকার ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ
ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়া এলাকায় অবস্থিত আরিফ নীট স্পিনিং মিলে রহস্যজনক চুরির ঘটনা ঘটেছে। কোম্পানির কর্মকর্তাদের অভিযোগ প্রায় আড়াই কোটি টাকা মূল্যের মালামাল কোম্পানির কেন্দ্রিয় ভান্ডার থেকে চুরি হয়েছে। এ ঘটনায় বকুল নামের এক শ্রমিককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃত বকুলকে ৫দিন রিমান্ড চেয়ে শনিবার
দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। কোটি কোটি টাকার মালামাল ভান্ডারে মজুত থাকার পরও কোনো সিসিটিভি ক্যামেরা না থাকায় মাত্র আধা ঘন্টার জন্য রম্নমে ঢুকার পর আড়াই কোটি টাকার মালামাল চুরির অভিযোগ তোলাই ঘটনাটি নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়,গত শুক্রবার(১০ জুলাই)কোম্পানির শ্রমিক জেলার নান্দাইল উপজেলার খাইরম্নয়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত মামুদ আলীর ছেলে বকুল কোম্পানির কেন্দ্রিয় ভান্ডার থেকে জেনারেটর দু’টি পস্নাগ চুরি করে নিয়ে যাওয়ার সময় তাকে হাতে নাতে ধরে ফেলেন। এ ঘটনায় কোম্পানির ব্যবস্থাপক কামরম্নজ্জামান তালুকদার বিদু্যৎ বাদী হয়ে একজনের নাম উলেখ্য করে ২কোটি,৪২ লাখ ৮০ হাজার টাকার মালামাল চুরির ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃত বকুলের ভাই বুলবুল দাবী করেন আরিফ নীট স্পিনিং মিল একটি বিশাল আকারের প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানে কয়েকস্ত্মরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। পুরো মিলটি সিসি টিভি ক্যামেরার আওতায় রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির মালিক বিদেশে অবস্থান করেও নেটের মাধ্যমে মনিটরিং করে থাকেন। আমার ভাই বকুল ওই দিন আধা ঘন্টার জন্য ওই রম্নমে ডিউটি পরে। আধা ঘন্টার মধ্যে কি ভাবে প্রায় আড়াই কোটি টাকার মালামাল একাই চুরি করল? যদি কোম্পানিতে চুরি হয়ে থাকে তাহলে মালিকের অনুপস্থিতিতে কোম্পনির বড় বড় কর্তারা একে অপরের যোগসাজশে কোম্পনির মালামাল চুরি করে নিয়ে আমার নিরপরাধ ভাই কে ফাঁসিয়ে দিয়েছে। কোম্পানির আনাচে কানাচে সিসি টিভি ক্যামেরা থাকলেও কেন্দ্রিয় ভান্ডারে কোন সিসি টিভি ক্যামেরা নেই। কামরম্নজ্জামান তালুকদার বিদু্যৎ জানান, বকুলের কাছ থেকে দু’টি মূল্যবান পস্নাগ নিরাপত্তা কর্মীরা জব্দ করেন। কোটি কোটি টাকার সম্পদ রক্ষিত কেন্দ্রিয়

ভান্ডারে কেন সিসি টিভি ক্যামেরা নেই প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন আপনি একটু বিপুল স্যারের সাথে কথা বলুন।এ ব্যাপারে ডিজিএম কবির উদ্দিন বিপুলের মোবাইল নাম্বারে বারবার ফোন দিয়ে রিসিভ না করায় তার মন্ত্মব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। ভালুকা মডেল থানার এস,আই মোঃ কাজল হোসাইন জানান,এঘটনায় অপর আসামী হিসাবে কোম্পানির ষ্টোর অফিসার মাসুদ কে আটক করা হয়েছে। এ চুরির সাথে কোম্পানির বড় কর্মকর্তারাও জড়িত থাকতে পারে। মামলাটি নিবির তদন্ত্মাধীন রয়েছে।